আমি (পর্ব৭)


আমি (পর্ব৭)

খোলা আকাশের নিচে এসব কথা ভাবলে ভালো হতো।রাতের আকাশে তারা দেখতে দেখতে অনেককিছু ভাবার আনন্দটাই অন্যরকম।আর চাঁদ উঠলে আরো মজার।আজকে চাঁদ দেখা যাচ্ছে না।খুব ক্লান্ত লাগছে।তাই সহজেই ঘুমিয়ে গেলাম।

সকালে খবর এলো রুমার বিয়ে ঠিক হয়েছে।আমি বাসা থেকে বের হলাম।ছেলে ভালো।তার পরিবার ভালো।সব দিক দিয়ে রুমার সাথে মানাবে।আমি তাদের বাড়িতে পৌঁছলাম।সবার মুখে কেমন যেন হাসি।রুমা তার নিজের ঘরে।আমি তার ঘরের দরজায় দাঁড়িয়ে বললাম"আসতে পারি?" 
"আরে রাত্রি আয় ভেতরে আয়।" 
আমি তার পাশে বসলাম। 
রুমা আমার দিকে তাকিয়ে বলল"কি অবস্থা তোর?"
আমি তার প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে বললাম,"তোমার নাকি বিয়ে ঠিক হয়েছে।"
"হুম। হয়েছে।"
"আগামী মাসেই নাকি বিয়ে।" 
"হ্যা।"
"আমি এখন চলে যাবো।" 
"আরে চা খেয়ে যা।" 
আমি চার জন্য অপেক্ষা করছি।কিছুক্ষণ পর চা এলো।আমি চা খেয়ে বের হলাম।আমি রিহানের বাড়িতে গেলাম।তাকে খুব গুরুত্বপূর্ণ কাজ দিয়েছি।সে কথা দিয়েছে ওই কাজ করবে। 
আমি রিহানকে বললাম,"কিরে এতদিন হয়ে গেল ওই কাজ কেন করছিস না?"
"সরি আমি পারবো না?" 
"কি,পারবি না!!!পারবি নাতো কেন কথা দিলি?"
"আসলে আমি বুঝিনি তাই কথা দিয়েছি।সরি ইসরাত আমি করতে পারবো না।অনেক ঝামেলা লাগছে।"
"কিন্তু আমার কাছে এত ঝামেলার মনে হয় না।" "প্লিজ ইসরাত।" 
"ঠিক আছে।" 
 

আমি রাগ করে বের হলাম।তার কাছে যদি এতই ঝামেলার মনে হকি টসলে কেন কথা দিলো?আমি একটা ফাকা রাস্তায় গেলাম। 
পৃথিবীতে কেউ রাখে না কথা
বুঝে না তারা হৃদয়ের ব্যাথা 
কথা রাখবো ঠিকই মানুষ বলে
কিন্তু কথাগুলো মিশে যায় জলে
তুমি আমি ঠিকই বলি রাখবো কথা
কিন্তু সময় এলে কখনো কখনো রাখি না কথা

পৃথিবীতে কেউ ঠিকভাবে কথা রাখে না।কেউ ইচ্ছা করে রাখে না।কেউ কথা রাখতে গিয়ে বিপদে পড়ে।এইজন্য রাখে না।কিন্তু যারা ইচ্ছা করেই কথা রাখে না কথা না রাখতে পারার বিভিন্ন কথা বলে।রিহান কিন্তু কথা রাখতে পারতো।সে ইচ্ছা করেই কথা রাখেনি।আর যার কথা রাখা হয় না তার হৃদয়টা শূন্য হয়ে যায়।তারও কষ্ট।এ সময় কে যেন আমার ভাবনার ঘোর কেটে দিলো।পাশে তাকিয়ে দেখি মারিয়া।মারিয়া বলল,"কিরে এখানে একা একা কি করছিস?"
"কিছু নারে এমনি বসে আছি।"
"নিশ্চয় কিছু ভাবছিলি।"
"তাতো অবশ্যই।বস এখানে।" 
 

মারিয়া আমার পাশে এসে বসলো।

মারিয়া পৃথিবীতে কেউ ঠিকভাবে কথা রাখে না।কেউ ইচ্ছা করে কথা রাখে না।আবার কেউ নিজের বিপদে পড়ে কথা রাখে না।কিন্তু যার কথা তার হৃদয় হয়ে যায় ফাঁকা।" 
"হুমম রে।" 
"মারিয়া।"
"হুমম বল।"
"চল আমরা একটা সুন্দর জায়গায় যাই।"
"এটাই তো সুন্দর।নির্জন রাস্তা।"
"এসব রাস্তা নির্জন হয়।তাই তো এত সুন্দর।রাস্তার দুই পাশে গাছ।এসবই সুন্দর।"
"হুমমরে।" 
"চল একটা জায়গায় যাই।খোলা আকাশের নিচে।চারদিকে গাছ।পাশে নদী।আশেপাশে পাহাড়,ঝর্ণা।"
"ইসরাত তুই তো ভালো কল্পনা করিস।"
"হাসিছ কেন?"
"এরকম জায়গা এখানে আছে নাকি যে বলছিস।"
"নাই যেখানে আছে সেখানে যাবো।"
মারিয়া হাসতে থাকলো।
"মারিয়া এতে হাসির কি আছে!!" 
"কিছু না।তোর এরকম জায়গায় প্রতিদিন যেতে মন চায় তাই না?"
"এখানে এরকম জায়গা থাকলে অবশ্যই যেতাম।"
"হুম।" 
মারিয়ার সাথে আরো কিছুক্ষণ গল্প করলাম।বাড়িতে আসলাম।সত্যি এমন জায়গা এখানে থাকলাম প্রতিদিন বসে থাকতাম।



প্রথম মন্তব্য লিখুন


মন্তব্য লেখার জন্য আপনাকে অবশ্যই লগ ইন করতে হবে


আপনার জন্য

আবার ফিরে দেখা

আবার ফিরে দেখা

   “ ঈপ্সিতা” ডাকটা শুনে...

তুমি অনন্যা (পর্ব ৩)

তুমি অনন্যা (পর্ব ৩)

পর্ব ৩:একটু এগুনোর পর শা...

বন্ধু

বন্ধু

রিজু,আমার বেস্ট ফ্রেন্ড।...

অপেক্ষা

অপেক্ষা

অপেক্ষা, এই জিনিসটা খুব ...

তুমি অন্যনা (শেষ পর্ব)

তুমি অন্যনা (শেষ পর্ব)

রনি সেখানে যেয়ে ইসরাতকে ...

তুমি অনন্যা

তুমি অনন্যা

তুমি অনন্যা লেখক:ইসরাত ই...

তুমি অন্যনা (পর্ব ৭)

তুমি অন্যনা (পর্ব ৭)

ইসরাত বললো,"ডিনার করেছেন...

অনুকথন

অনুকথন

অন্নদার ডাক নাম অনু।অনুর...

সেদিন

সেদিন

 আজ সকাল থেকেই আকাশটা কে...

অ্যাক্সিডেন্ট

অ্যাক্সিডেন্ট

অ্যাক্সিডেন্ট আজ আমি ভীষ...

দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া

দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া

❝বহু দিন ধরে, বহু ক্রোশ ...

মিঠু

মিঠু

  আমি মিঠু। পুরো নাম মিঠ...

আমি (পর্ব৩)

আমি (পর্ব৩)

"এমনি দিসিলাম।কি করছিলি ...

ডাবল জিরো

ডাবল জিরো

অংক পরীক্ষায় একেবারে দুট...

চিঠি

চিঠি

রহস্যময়, জানি চিঠিটি আপন...

দার্শনিক ফল্টুদা

দার্শনিক ফল্টুদা

দার্শনিক ফল্টুদা —ফল্টুদ...

ভয়ের রাত

ভয়ের রাত

ভয়ের রাত চিন্টুর শরীরটা ...

টিভিকথন

টিভিকথন

আমাদের ছাদে একটি স্টোররু...

ভয়

ভয়

ছোট বেলার থেকেই আমি ছিলা...

প্রতিবিম্ব

প্রতিবিম্ব

আয়নার সামনে বসে নিজেকে দ...