দৃষ্টিগোচর


দৃষ্টিগোচর

জীবনে অসফল এক ব্যাক্তি আমি। জীবনের অবসান যেহেতু হয়নি তাই বাক্যটা অন্য ভাবে লেখাই উত্তম। জীবনে এখনো পর্যন্ত অসফল এক ব্যাক্তি আমি। তাই সময় পেলেই স্মৃতি হাতরাই। কখনো অপরকে দোষ দেই আবার কখনোবা নিজেকে। সকল অসফল ব্যাক্তিরাই হয়তো এমন করে। কিভাবে বললাম এই কথাটা? এতো আমার জানা একটি কথা। অসফল ব্যাক্তিদের হাতে অনেক সময়। কেউ তাদের কাছে আসে না। সমাজের মাঝে এক রকম অদৃশ্য তারা। আর এই সময়ে তারা চিন্তা করে তাদের অতীতের কথা। হঠাৎ করে যদি অসফলদের দল থেকে একবার নাম কাটিয়ে সফলদের দলে জুড়ে দেওয়া যায়। তখন আর স্মৃতিচারণ করতে হয়না। আসলে তখন এর জন্যে সময়-ই থাকে না। অসফলতার সময়কার হাতে থাকা অঢেল সময় সফলতার এক রুটিনে যেনো বন্ধি হয়ে যায়। আশেপাশের মানুষ গুলোর নজরে পরতে না চাইলেও পরে যাওয়া হয়। সবাই তখন মাতামাতি করে। অদৃশ্য কৃষ্ণগহ্বর থেকে হঠাৎ-ই হয়ে উঠা হয় দ্বীপ্তিমায় নক্ষত্র।

 

 

যা-হোক আমি অসফলদের দলেই আছি এখনো। হাতে আছে অঢেল সময়। এসময়ে সফল হওয়ার চিন্তার থেকে অসফলতার চিন্তা বেশি মাথায় আসে। আবার কারো কারো এর কোনোটাই হয় না। সারাদিন শুধু ভাবে অতীতের কথা। কখনো যদি হাতে একটু বেশি সময় পেয়ে যায়, তখন তার মনে পরা কিছু অতীত লিখে রাখে। লিখে রাখা অতীতে আবার নিজের মতামতও ব্যক্ত করে। যেমনটা আমি করছি এখন। হাতের কাছেই বই আছে কিন্তু পড়ছি না। আমি যে অসফল।

অসফলতার চাদর আমার গায়ে জরানো। এর গুণের অবশ্য শেষ নেই। হ্যারি পটারে যে অদৃশ্য হওয়ার চাদর ছিলো এটাও অনেকটা তেমন। যতক্ষণ গায়ে জরিয়ে রাখবো ততক্ষণ কেউ আমাকে দেখবেই না। কিছু অসফল ব্যাক্তিদের কাছে আবার এর প্রতিকারও আছে। সহজ কোনো কাজে সফলতা অর্জন করা। যা করতে বেশি শ্রম দিতে হয়না কিন্তু এতে সবার এমন দৃষ্টিগোচর হয় যেনো তার গা থেকে অসহনীয় আলো আর তাপ আসছে।

 

একটা ছেলে একটা মেয়েকে ভালোবাসতো। ছেলেটা পড়ালেখায় বেশ ভালো ছিলো। বোর্ড এক্সামে সে দেখলো মেয়েটা পরিক্ষায় ফেইল করবে। তাই সে ইচ্ছা করে নিজে ফেইল করার জন্যে খাতায় কিছু লিখলো না। পরবর্তীতে যখন পরিক্ষার ফল প্রকাশ হলো দেখা গেলো মেয়েটা পাশ করেছে। আর আশানুরূপ ছেলেটা করেছে ফেইল। তাদের সম্পর্ক ভালোই ছিলো কিন্তু ছেলেটার এক বছর পিছিয়ে যাওয়ার জন্যে অচিরেই সম্পর্কে ফাটল ধরে। এর এক পর্যায়ে মেয়েটা ছেলেটাকে ছেরে দেয়। ছেলেটা এটা মেনে নিতে পারলো না। তার মাথায় একটাই ধারনা ঘুরতে শুরু করলো। মেয়েটার জন্যে তার এক বছর নষ্ট। সে তার হয়নি তাকে অন্য কারোরও হতে দেওয়া যাবে না। কয়েকদিন সময় গেলো, এর মাঝে ছেলেটা একটা বড় দা বানালো। আর মাথায় দৃঢ় এক পরিকল্পনা।  মেয়েটা তার হয়নি অন্য কারোরও হবে না।। 

 

একদিন মেয়েটা হাতে বই নিয়ে রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলো। হয়তো কলেজের দিকে। ছেলেটা তাকে দেখে এবং বাড়ি থেকে দা নিয়ে এসে এলোপাথাড়ি ভাবে কোপ দেয়। এক পর্যায়ে মেয়েটা রাস্তায় পরে গেলে ছেলেটা পালিয়ে যায়। এতে অবশ্য তাকে অনেকে সাহায্য করে। ঘটনার প্রায় ১০ বছর পর সে ধরা পরে পুলিশের হাতে এবং তার জেল হয়।।

 

গ্রামের অনেকেই এই ঘটনায় অনেক মন্তব্য করেন। ঘটনাটা অবশ্য ছেলে এবং তার দিককার কিছুলোক প্রচার করে।  কেউ বলেন "মেয়েটা যা করছে এতে এই পরিনতিই ঠিক"। কেউ বলেন " ইশ আর কয়দিন পলাইয়া থাকলেই জেল খাটন লাগতো না"। সে সময় মেয়ের দিকের কোনো কথা কারো মুখে শুনতে পাইনি  শুনে থাকলেও হয়তো খেয়াল নেই।তখন কি কারো দৃষ্টিগোচর হয়নি মেয়েটিকে কুপিয়ে হত্যা করা হচ্ছে? কিংবা কারো কানে কি মেয়েটির চিৎকার গিয়ে পৌঁছায়নি? মেয়ের বান্ধবীরা কি বলেছিলো মেয়েটি ছেলেটিকে ভালোবাসতো? নাকি শুধুই ছেলেটির কথায় সেদিন আমরা নেচেছিলাম। বয়সে অনেক ছোট হওয়াতে অন্যের চিন্তাই নিজের চিন্তা ছিলো তখন। তখন ছেলেটাকে খুব-একটা খারাপ মনে হয়নি। মনে হয়েছিলো প্রতিবাদী। তখন তো আর বুঝতাম না সে খুনি। সে তার মাধ্যমিক ফেলের অসফলতার অদৃশ্য হওয়ার চাদরটা খুব নিপুন ভাবেই পুঁড়িয়েছিলো। এতোটাই নিপুন যে আজও কিছু মানুষের কাছে সে নায়ক!! প্রতিবাদী নায়ক!!

 


 

মেয়ের দিকের কোনো কথা লোকের সামনে আসলে হয়তো এমন হতো না। হয়তো পালটে যেতো গল্পটা। হয়তো তখন কর্ণপাত হতো মেয়েটির শেষ আর্তনাদ। হয়তো তখন দৃষ্টিগোচর হতো মেয়েটির মৃত্যুপূর্ব ছটফট।

 


সিকন
রিদা
তারা এই গল্পটি পছন্দ করেছেন ।

৭টি মন্তব্য

সিকন

সিকন

৩ বছর আগে

প্রতিবাদই যখন করল তাহলে ভালোবাসার কি অস্তিত্ব রইলো!🤔

Anik

Anik

৩ বছর আগে

@sekon ধন্যবাদ... সাথে থাকার জন্য।

সিকন

সিকন

৩ বছর আগে

@anik স্বাগতম

রিদা

রিদা

৩ বছর আগে

এটাকে ভালেবাসা বলে না!!🙄🙄 যদি সত্যি ভালোবাসতো না তাহলে মেয়েটাকে খুন করতো না!!! চাইতো মেয়েটা যেনো সবসময় ভালে থাকে হাসি খুশি থাকে!! এটা কখনোই ভালোবাসা নয়!!!জাস্ট একটা জেদ!🙄🙄🙄 ভালো ছিলো☺️

Anik

Anik

৩ বছর আগে

@rida জেদ ছিলো .. নাকি ভালোবাসা তা জানিনা .. শুধু ভাবতে অবাক লাগে .. কিছু মানুষের কাছে সে নায়ক ।।

রিদা

রিদা

৩ বছর আগে

🙄🙄🙄 নায়ক না ভিলেন!!!🙄🙄 মানুষ যেটা বাহিরভাবে দেখে সেটাই বিশ্বাস করে!!! ভিতরটা খুব কম মানুষ দেখে!!! আপসোস! এই জন্যে হয়তো দোষীরা ছার পেয়ে যায়!!!🙄

Anik

Anik

৩ বছর আগে

@rida হয়তো।।


মন্তব্য লেখার জন্য আপনাকে অবশ্যই লগ ইন করতে হবে


আপনার জন্য

কয়েকদিন হাসপাতালে

কয়েকদিন হাসপাতালে

একবার আমার কয়েকদিন হাসপা...

আমি (পর্ব২)

আমি (পর্ব২)

আজ পূর্ণিমা রাত।ছাদে একা...

আমরা তো সবাই মানুষ!!!!

আমরা তো সবাই মানুষ!!!!

তখন আমি ক্লাস 5 এ পড়ি, স...

অপেক্ষা

অপেক্ষা

অপেক্ষা, এই জিনিসটা খুব ...

মিষ্টি ভালোবাসা

মিষ্টি ভালোবাসা

বউটা আজকে আমার উপর অনেক ...

রোহান বিল্লা

রোহান বিল্লা

     রোহান বিল্লা   লেখি...

বন্ধু

বন্ধু

রিজু,আমার বেস্ট ফ্রেন্ড।...

বিলাপ

বিলাপ

আচ্ছা আমরা কি ভালোবাসি?শ...

অনুকথন

অনুকথন

অন্নদার ডাক নাম অনু।অনুর...

ছোট দাদুর বাড়িতে কয়েকদিন.....(পর্ব ১)

ছোট দাদুর বাড়িতে কয়েকদিন.....(পর্ব ১)

ছোট দাদুর  বাড়িতে কয়েকদি...

তুমি অনন্যা  (পর্ব ৫)

তুমি অনন্যা (পর্ব ৫)

রনি বললো," একটা কবিতা বল...

কে তুমি  (শেষ পর্ব )

কে তুমি (শেষ পর্ব )

                   কে তু...

জুতা চোর

জুতা চোর

এই বিশুটা জুতা চুরি করে ...

পথশিশু

পথশিশু

লাবণ্য,  একজন পথশিশু। পথ...

ভয়

ভয়

ছোট বেলার থেকেই আমি ছিলা...

পড়ন্ত বিকেলে...

পড়ন্ত বিকেলে...

পড়ন্ত বিকেলে...সারাদিন ঝ...

কেমন আছো তুমি

কেমন আছো তুমি

 নিলিকে আমি আমার মনের কথ...

আমি (পর্ব৭)

আমি (পর্ব৭)

খোলা আকাশের নিচে এসব কথা...

দার্শনিক ফল্টুদা

দার্শনিক ফল্টুদা

দার্শনিক ফল্টুদা —ফল্টুদ...

কে তুমি

কে তুমি

                     "কে...